নির্মাণের ছয় বছরেই ঝুঁকিপূর্ণ রাতারগুলের ওয়াচটাওয়ার

Spread the love

বার্তাবহ চাঁদপুর ডেস্ক: নির্মাণের ছয় বছরের মধ্যেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে জলারবন রাতারগুলের পর্যটক ওয়াচটাওয়ার। একসঙ্গে কয়েকজন পর্যটক উঠলেই দুলে ওঠে ওয়াচটাওয়ারটি। এ অবস্থায় দর্শনার্থীদের ওয়াচটাওয়ারে ওঠার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সেখানে সাইনবোর্ড টাঙিয়েছে বন বিভাগ।

সিলেটের গোয়ানাইঘাট উপজেলায় অবস্থিত জলারবন রাতারগুলে ওয়াচটাওয়ারটি নির্মাণ করা হয় ২০১৪ সালে। পর্যটকদের এক জায়গায় দাঁড়িয়ে গোটা বনের সৌন্দর্য দেখার সুবিধার্থে টাওয়ারটি নির্মাণ করে বন বিভাগ। যদিও বনে পর্যটক সমাগম বাড়ার পাশাপাশি এর প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য নষ্ট হওয়ার আশঙ্কার কথা জানিয়ে এতে আপত্তি তুলেছিলেন পরিবেশকর্মীরা।

বর্তমানে একসঙ্গে কয়েকজন পর্যটক উঠলেই দুলে উঠছে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠা ওয়াচটাওয়ারটি। দুর্ঘটনার আশঙ্কায় টাওয়ারটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে দর্শনার্থীদের ওঠার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে রোববার সেখানে সাইনবোর্ড টাঙিয়েছে বন বিভাগ।

এ বিষয়ে সিলেট বন বিভাগের সারি রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার সাদ উদ্দিন বলেন, অনেকদিন ধরেই ওয়াচটাওয়ারটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। আমরা আগেই একসঙ্গে চার-পাঁচজনের বেশি দর্শনার্থী এ টাওয়ারে না ওঠার নির্দেশনা দিয়ে সাইনবোর্ড টাঙিয়েছি। এছাড়া পর্যটকবাহী নৌকার মাঝিদেরও বলা হয়েছিল টাওয়ারে যাতে একসঙ্গে চার-পাঁচজনের বেশি না ওঠেন। কিন্তু এ কথা কেউ মানছেন না। একসঙ্গে শত শত মানুষও টাওয়ারে উঠে পড়ে। এতে প্রায় সময় টাওয়ারটি নড়ে ওঠে। ফলে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটার ঝুঁকি রয়েছে। তাই আমরা এ টাওয়ারে দর্শনার্থী ওঠা আপাতত নিষিদ্ধ করছি। রোববার এ-সংক্রান্ত সাইনবোর্ড টাঙানো হয়েছে। দর্শনার্থীরা যাতে টাওয়ারে চড়তে না পারেন, এজন্য বন বিভাগের নজরদারিও থাকবে। পরবর্তী সময়ে প্রকৌশলীদের সঙ্গে কথা বলে টাওয়ারের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

সুত্রঃ বণিক বার্তা

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.