যৌতুকের দাবিতে ময়মনসিংহে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

Spread the love

বার্তাবহ চাঁদপুর ডেস্ক: ময়মনসিংহে যৌতুকের দাবিতে শ্বাসরোধ করে এক গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিয়ের মাত্র তিন মাসের মাথায় ময়মনসিংহ সদরের শম্ভুগঞ্জ এলাকার এ ঘটনায় নিহতের নাম মাহমুদা আক্তার। পুলিশ নিহতের স্বামী ও দেবরকে গ্রেপ্তার করেছে।

সদর এলাকার রাঘবপুর গ্রামের আবদুল হালিমের এক ছেলে দুই মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে মাহমুদা আক্তার। তিনি গৌরীপুরের কলতাপাড়া মোফর আলী কালেজের উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ালেখা করতেন।

স্থানীয়রা জানান, বিয়ের পর থেকে মাহমুদা তার স্বামী শম্ভুগঞ্জের রঘুনাথপুর সবজিপাড়া গ্রামের শাহাজান মিয়ার ছেলে সজল মিয়াকে কয়েক দফা বাবার বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে দেন। আবার নতুন করে টাকা দাবি করেন সজল। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার দিনভর স্বামীর পরিবারের লোকজনের সঙ্গে ঝগড়া হয় মাহমুদার।

সন্ধ্যায় মাহমুদার স্বামী সজল শ্বশুর বাড়িতে ফোন করে মাহমুদার শারীরিক অবস্থা খারাপের কথা জানান। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই সজল তার শ্বশুরকে মাহমুদার মৃত্যুর খবর দেন।

মাহমুদার বাবা আবদুল হালিম বলেন, যৌতুকের জন্য তার মেয়ের ওপর অত্যাচার চলছিলো। মেয়ে বিষয়টি তাকে জানিয়েছিলো। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মেয়ের অবস্থা খারাপ শুনে দ্রুত সেখানে যান। গিয়ে দেখেন তার মেয়ের নিথর দেহ পড়ে রয়েছে। গলায় দাগ রয়েছে। পড়ে জানতে পারেন তার মেয়েকে বৈদ্যুতিক তার গলায় পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। পরে তিনি বাদী হয়ে মামলা করেন।

ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফিরোজ তালুকদার বলেন, যৌতুকের জন্য নববধূকে হত্যার ঘটনায় চারজনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়মনাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্বামী-দেবরকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.