সেই কষ্টের অতীতের কথা ফাঁস করলেন বিদ্যা

Spread the love

বার্তাবহ চাঁদপুর ডেস্ক: বলিউ’ডের অন্যতম গুণী অভিনে’ত্রী বিদ্যা বালান। ১৯৯৫ সালে ‘হম পাঁচ’ ‘ধারাবাহিকে অভিনয়’ করে টেলিভিশনে নাম লেখান’ তিনি। ২০০৩ সালে ‘ভালো থেকো’’ ছবির মাধ্যমে বড়’পর্দায় অভি’ষেক।

২০০৫ সালে প্রথ’ম হিন্দি ছবি করেন তি’নি। ছবির নাম ‘পরিণীতা’। তার’পর থেকেই একের পর ‘এক সুযোগ আসতে’ থাকে তা’র কাছে।

তবে বিদ্যার এই পথচলাটা সহজ ছিল না। প্রত্যাখ্যান শব্দটা তার ক্যারিয়ারের শুরুর থেকে জু’ড়ে রয়েছে। তিনি এতো বেশি ‘প্রত্যাখ্যাত ‘হয়েছিলেন যে কনফিডেন্স হারান’। রা’তের পর রাত কাঁদতেন’, ঘুম হতো না। আজ যে বিদ্যাকে’ দর্শক দেখেন, সেই জায়গা’ তৈরি করা মোটেই সহজ ‘ছিল না। সদ্য এক সাক্ষা’ৎকারে ক্যা’রিয়ারের শুরুর সেই কঠিন ‘দিনগুলোর কথা শে’য়ার করেছেন ‘বিদ্যা।

তিনি জানা’ন, আমার দ্বারা কিছু হবে না। এটাই’ ভাবতাম। দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি’তে বহুবার আমা’কে বাতিল করে দেয়া হয়ে’ছে। ২০০২-২০০৩ নাগা’দ প্রতিদিন কাঁদতে কাঁদ’তে ঘুমোতে যেতাম। আমার ‘মনে হতো, আর কখনও অভিনে’তা হতে পারবো না। হতাশ ‘লাগত। পরের ‘দিন ভোরে আবা’র আশা করতাম। ভাবতা’ম, নতুন একটা দিন ‘মানে নতুন’ সু’যোগ।

বিদ্যা ‘আরও জানিয়েছেন, বহুবার ব্যর্থ হয়েও আশা’ ছাড়েননি তিনি। আর এই সাফল্যের জন্য ‘বাবা, মায়ের অবদানের ক’থাও বার বার স্বী’কার করেন। অভি’নয় করে বলিউ’ডে নিজের জা’য়গা তৈরি করেছেন। পরে প্রযোজ’ক সিদ্ধার্থ রায় কাপুর’কে বিয়ে করলে বি’দ্যার আরও একটি’ পরিচয় তৈরি হয়। এমনকি চেহারা ‘নিয়েও বহু কটাক্ষ সহ্য করতে হয় তাকে’। ভালো অভিনয় করতে গেলে’ তথাকথিত স্লিম ‘হতে হবে, সে’ই বাঁধা গতের ধারণা”কে ভেঙে দিয়েছেন তিনিই। ফলে তার জার্নি ‘অনেকের কাছেই ‘অনুপ্রেরণা হয়ে’ থাক’বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *