মাংস খেয়ে দাঁতের ফাঁকে ব্যথা হলে করণীয়

Spread the love

বার্তাবহ চাঁদপুর ডেস্ক: কুরবা’নির ঈদে প্রায় সবাই’ কমবেশি মাংস খেয়ে থাকেন। ‘টানা মাংস খাওয়ার পর উচ্ছিষ্ট দাঁতের ফা’কে জমে থেকে মাড়ি’তে ব্যথা হতে’ পারে। অনেক সময় ‘প্রদায়ও দেখা’ দেয়।

এ সমস্যায়’ করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ দিয়েছেন রাজধানীর কলাবাগানে’র রাজ ডেন্টাল সেন্টারের ডেন্টাল সা’র্জন ডা. মো. আসাফু’জ্জোহা রাজ।

প্রতি বছর ‘কুরবানি’র ঈদের পর ডেন্টাল ক্লিনিকগু’লোতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রো’গী আসে মাড়ি ও দাঁতের ‘নানা সমস্যা নিয়ে, অধি’কাংশ ‘ক্ষেত্রে যার কারণ অতিরিক্ত ‘মাংস ও হা’ড় চিবা’নো।

বয়স বা’ড়ার সঙ্গে বা অন্য কোনো কারণে দুই দাঁতের মধ্যব’র্তী স্বাভাবিক সংযোগ কেন্দ্র নষ্ট হয়ে যেতে পারে, তখন ‘যে কোনো খাবার বিশেষ করে’ মাংসের আঁশ ঢু’কে ব্যথার সৃষ্টি করে।’

ঈদের’ সময় অতিরিক্ত মাংস চর্বণে মাংসের আঁশ স’হজেই এখানে ঢুকে থাকে। প্রাথমি’ক পর্যায়ে অস্বস্তি বা মৃদু ‘ব্যথা কমাতে টুথ’ পিক, কাঠি, ‘পিন বা হাতের কাছে যা থাকে সে’টা দিয়েই পরিষ্কারের চেষ্টা করে অ’নেকে কিন্তু এখান থেকে মাড়িতে’ প্রদাহ ও সংক্রমণ ‘হওয়ার ঝুঁকি’ অনেক বেশি, দুই দাঁ’তের মধ্যবর্তী ফাঁকাও বেড়ে যায়, পেরিওপকে’ট নামক বিশেষ স্থান তৈরি হয়ে দাঁতের’ ধারক কলা বা পেরিওডো’ন্টাল রোগে’র সৃষ্টি করে।

একপ’র্যায়ে মাড়ি ফুলে যাওয়া, র’ক্তপড়া, ব্যথা, দুর্গন্ধ, দাঁত শিনশিন, ‘কামড়ে ব্যথা ও দাঁত নড়ে ‘যাওয়াসহ নানা জটিলতার ‘সৃষ্টি হয়। অনেক ‘সময় টুথপিকের অংশ ‘ভেঙে মাড়ির মধ্যে ঢুকে জটিল অ’বস্থার তৈরি ক’রে।

বড় ফি’লিং বা ক্যাপ খুলে যাওয়ার আশংকা থা’কে। অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, মুখের যত্নে’ অবহেলা, রোগ প্রতিরো’ধ ক্ষমতা কম, ধূমপা’ন প্রভৃ’তিতে টুথপিক বা কাঠি ব্যবহারে জ’টিলতা দ্রুত শুরু হয়, অন্যদিকে অতিরিক্ত খাবার’ থেকে এসব রোগের মাত্রা’ বেড়ে গিয়ে মুখের অভ্যন্তরে’ও বিরূ’প প্রতিক্রিয়া ফেলে।

টুথপিক ‘ব্যবহারে এল ৯২৯ বৃদ্ধিতে ফাইব্রোব্লাস্ট তৈরির মাধ্যমে ক্যা’ন্সারে রূপান্তরিত হওয়ার বিষয়’টিও গবেষণায় উঠে আসছে।’

আক্কেল দাঁতের জ’টিলতাও বাড়তে পারে, এই দাঁ’ত সম্পূর্ণ না উঠলে বা বাঁকা হয়ে উঠলে’ দাঁতের চারপাশের মাড়ির ম’ধ্যে গৃহিত ‘দ্য বিশেষ করে ‘মাংস ঢুকে কষ্টদায়ক প্রদা’হের সৃষ্টি ক’রতে’ ”পা’রে।

কেউ আ’বার টুথ ব্রাশ দিয়ে জোরে ব্রাশ করে’ খাবার বের করার চেষ্টা করে, যা থে’কে দাঁত ও মাড়ি উল্টো ক্ষ’তিগ্রস্ত হতে পারে। সাধারণ টুথ ব্রা’শের ব্রিসল্ দুই দাঁতের ‘মধ্যবর্তী স্থান পরিষ্কার করতে পারে ‘না, টুথ ব্রাশ কেবল মাত্র দাঁ’তের ৭০ শতাংশে’র মতো পরিষ্কার কর’তে পারে।

যা করবেন : ‘দাঁতের ফাঁক পরিষ্কারের সঠিক মাধ্যম হলো বাজা’জাত ডেন্টাল ফ্লস নামক বিশেষ সুতা বা ইন্টার ডেন্টাল ব্রাশ’। খাবার জমার’ প্রবণতা থাকলে ঈদের আগেই এটা’ জোগাড় করে নিতে হবে, ব্যবহারবিধি না জানলে মনগ’ড়া পদ্ধতিতে না গিয়ে চিকি’ৎসকের পরাম’র্শ অথবা ইন্টারনেটের সাহা’য্যে জেনে নি’তে হবে।

জীবাণুনাশ’ক মাউথ ওয়াশ যেমন ১ শতাংশ পোভি’ডন আয়োডিন, ক্লোরহেক্সি’ডিন বা Dl&T পানিতে লব’ণ মিশিয়ে খাবারের পর কু’লকুচি করলেও’ ভালো ফল পাওয়া যায়।

আগে থেকে’ই যারা মাড়ি রোগে ভুগছেন তাদেরকে চিকিৎসকে’র পরামর্শে চিকিৎসা নেওয়া জরুরি’, অন্যদিকে দুই দাঁতের সংযোগ ‘স্থানে গর্ত’ বা অস্বাভাবিক ফাঁকা’ থাকলে সেখানেও চি’কিৎসা প্রয়ো’জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *