স্ত্রী-সন্তান হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

Spread the love

বার্তাবহ চাঁদপুর ডেস্ক: মানি’কগঞ্জের দৌলতপুর উপজে’লায় স্ত্রী ও আড়াই বছরের ক’ন্যা সন্তানকে হত্যার দায়ে স্বামী জাকির হোসেন’কে ফাঁসি ও তার ‘৬ স্বজন’কে যাবজ্জীবন কারাদ’ণ্ডের আদেশ দিয়ে’ছেন আদালত।’

রোববা’র (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ’ আদালতের বিচারক ‘উৎপল ভট্টাচা’র্য্য এ রা’য় দেন।

মামলার বি’বরণে জানা যায়, ২০০০ সালে পংতিরছা গ্রামের মেয়ে লিপা আক্তারের স’ঙ্গে একই গ্রামের জাকির হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ে’র আড়াই বছরের মধ্যে লিপার ‘ঘরে এক কন্যা সন্তানের জন্ম ‘নেয়। এ সময় জাকি’র পাশের বাড়ির চাচা’ত ভাইয়ের বউ তাহমি’নার স’ঙ্গে পরকী’য়ায় জড়িয়ে’ পড়ে।

এতে ‘প্রায় সময়ই স্বামী জাকির হোসেন স্ত্রীকে নির্যাত’ন করতে শুরু করে। ২০০৫’ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে লিপা তার স্বামীর ও ‘তাহমিনার অনৈতিক কাজ ধরে’ ফেলে। এ সময় জাকির লিপার গ’লা টিপে হত্যা করে। প’রে তার আ’ড়াই বছরের শিশু কন্যা ‘ঘটনা’টি দেখে ফেল’লে আসামি তাহমিনা, স্বপন, জাহা’ঙ্গীর, হাসান, আমীনূর ইসলাম, পারভেজ রানা মিলে শিশু ‘জ্যোতিকেও গলা টিপে’ হত্যা ও লিপার হত্যা’র বিষয়’টি নিশ্চিত করেন।

পরে ম’রদেহ পাশের বাড়ি থেকে এনে জাকি’রের বাড়িতে রাখে ও ডাকাতির না’টক করতে থাকে। এতে পুলিশ’ সংবাদ পেয়ে ঘট’নাস্থল থেকে’ মরদেহ উদ্ধার করে মা’নিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় জাকির গা ঢাকা’ দেয়। লিপার স্বজনদের বিষয়টি’ সন্দেহ হলে’ ২০০৫ সালের’ ২৭ ফেব্রুয়ারি নিহতদের বাবা আবু হানিফ বাদী হয়ে দৌলত’পুর থানায় একটি হত্যা মামলা দা’য়ের করেন। পরে তাহমিনা’সহ অন্যান্য ‘আসামিদের ওই দিনই পুলিশ গ্রে’প্তার করেন।

এ মামলায় ২৭ ‘জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের পর যাবজ্জীবন হওয়া আ’সামিদের উপস্থিতি ও জাকির হো’সেনের অনুপস্থিতিতে ‘দীর্ঘদিন ‘পর স্বামী জাকির হোসেনকে’ ফাঁসি ও ৬ জন স্বজনকে যাব’জ্জীবন কারাদণ্ডাদে’শ দেন বিচারক’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *